চোখ ভালো রাখার উপায়

বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত গুরত্বপূর্ণ হেলথ টিপস

পেশাগত জীবনে একবার হলেও কম্পিউটার ভিশন সিনড্রম (সিভিএস) রোগে আক্রান্ত হয়েছেন কিংবা হচ্ছেন অনেক ব্যবহারকারীই। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, কম্পিউটার ব্যবহারের ক্ষেত্রে  মাঝে মধ্যে একটু বিরতি নেওয়া প্রয়োজন। একভাবেটানা বেশিক্ষণ কাজ করা উচিত নয়। যুক্তরাজ্যে ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফিমেইলর ফাস্ট ডটকম এক গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে, দীর্ঘ সময় এক জায়গায় বসে কম্পিউটারে কাজ করলে ডায়াবেটিক , স্ট্রোক, এমনকি হার্টের সমস্যা দেখা দিতে পারে। লন্ডনের ভিশন ক্লিনিকের অধ্যাপক ডা. রেইনস্টেইনের ভাষ্য হলো আমাদের প্রতি মিনিটে চোখের পলক ফেলা উচিত ১৮- ২০ বার। কিন্তু কম্পিউটারে কাজ করার সময় প্রতি মিনিটে চোখের পলক পড়ে ৭-৮ বার। এ পলক হ্রাসের ফলে চোখে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। এর মধ্যে রয়েছে চোখের শুষ্কতা ও ঝাপসা দেখা। সিভিএস রোগের সাধারন বৈশিষ্ঠ্য হলো চোখ লাল হয়ে যাওয়া, দুটো করে দেখা ও মাথাব্যথা। তাই একটু সাবধান হলে এ রোগ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব। এ ক্ষেত্রে যা করতে হবে তা হলো – কম্পিউটারে কাজ করার সময় প্রতি এক ঘন্টায় একটি বিরতি দিতে হবে। যে কম্পিউটারে প্রতিদিন কাজ করা হয়, সেটির স্কিন পরিষ্কার রাখতে হবে। চোখের পলক ফেলার ওপর খেয়াল রাখতে হবে তা যেন নিয়মিত বিরতিতে পড়ে। কম্পিউটার স্ক্রিন থেকে সঠিক দুরত্বে অবস্থান করুন। না হলে চোখের সমস্যা বাড়তেই পারে। পেশীজনিত রোগের ঝুঁকিও বাড়বে এত সিভিএসের ফলে চোখের শুষ্কতা  বেড়ে যায়। যদি কর্মস্থলে এয়ার কন্ডিশন ও পাখা থাকে , তাহলে এ শুষ্কতা আরও বাড়বে।নিয়মিত বেশি করে পানি পান করুন। কাজ করার সময় ঝলমলে আলোর দিকে তাকানো থেকে বিরত থাকুন।

কম্পিউটার স্ক্রিনের আলোর মাত্রা কমিয়ে নিন। বাহির থেকে এসে কমপক্ষে ১৫-২০ বার চোখে পানি দিন। এতে চোখ শীতল হবে এবং ভাসমান ময়লা দুর হবে। সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ বিষয় হলো চোখ নিয়মিত পরীক্ষা করুন। কোন সমস্যা হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। মানুষের দেহের প্রতিটি অঙ্গই গুরত্বপূর্ণ। তবে চোখ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। চোখের সাহায্যে মানুষ সুন্দর –অসুন্দর ,ভালো মন্দ দেখতে পারে। জীবনে চোখের মুল্য যে কত তা যার চোখ নেই তার সাথে তুলনা করলে উপলব্ধি করা যায়। সুতরাং মহামুল্যবানএঅঙ্গটির যত্ন নিন।