দৃষ্টি শক্তি বাড়ান

বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত গুরত্বপূর্ণ হেলথ টিপস

পলক ফেলুন : ১০-১৫ সেকেন্ড পর পর  চোখের পাতা মুহুর্তের জন্য বন্ধ করুন। এক দৃষ্টিতে না তাকিয়ে মাঝে মাঝে চোখের পাতা পড়তে দিন। এতে চোখ পরিস্কার ও পিচ্ছিল থাকবে।

চোখের ব্যায়াম : চোখের মনি একবার বামদিকে, একবার ডানদিকে করুন। এভাবে ১০-১৫ বার করুন। এতে  চোখের রক্ত সঞ্চালন বাড়বে।

কাছে ও দুরে তাকান : কাছে ও দুরে তাকানোর অভ্যাস করুন। এই তাকানোর অভ্যাস আপনি দুই হাতের দুই আঙুল দিয়ে করতে পারেন। ডান হাতের তর্জনী চোখ থেকে আধা হাত দুরে রাখুন। আর বাম হাত যতটা সম্ভব দুরে নিয়ে তর্জনী সোজা করে রাখুন। এবার প্রথমে ডান অর্থাৎ কাছের হাতের তর্জনীর দিকে দুই চোখ দিয়ে ৫ সেকেন্ড এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকুন। ক্ষণিকের জন্য চোখের পাতা ফেলুন । এরপর আবার দুরে অবস্থিত বাম হাতের তর্জনীর ডগার দিকে এক দৃষ্টিতে ৫ সেকেন্ড তাকান। ক্ষণিকের জন্য পলক ফেলুন। আবার কাছের আঙ্গুলের উপর দৃষ্টি নিবন্ধ করুন। এভাবে ১০ বার এই অনুশীলন করুন।

পানির ঝাপটা : সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে প্রথমে কাজ হবে চোখে পানির ঝাপটা দেয়া । বেসিনের সামনে গিয়ে চোখ পুরোপরি বন্ধ করে প্রথমে ২০ বার ইষৎ উষ্ণ পানির ঝাপটা দিন। এরপর ২০ বার ঠান্ডাপানির ঝাপটা দিন। আবার রাতে শোয়ার আগে শেষ কাজ হবে চোখে পানির ঝাপটা দেয়া। এবার উল্টো ভাবে। অর্থাৎ প্রথমে ২০ বার ঠান্ডা পানি দিয়ে পরের ২০ বার ইষৎ উষ্ণ পানি দিয়ে। এতে চোখে রক্ত চলাচল বাড়বে। চোখ হবে প্রাণবন্ত।

চোখের এই যত্ন কত যে উপকারী তাহা প্রখ্যাত লেখক অ্যাডলাস হাক্সলীর জীবন আলোচনা করলে বুঝা যায়। ১৯৩৯ সালে হাক্সলীর বয়স যখন ৪৫ তখন তার দৃষ্টিশক্তি দ্রুত অবনতি হতে থাকে। পড়ার জন্য উনি গ্রহণ করেন মোটা Magnifying গ্লাসের চশমা। এসময় তিনি বেস্ট মেথডের কথা শুনেন এবং দুই মাস এই পদ্ধতি চর্চা করার পর  তিনি চশমা ছাড়া পড়তে  সক্ষম হন। পরে হাক্সলী নিজেও চোখের যত্ন বিষয়ে একটি বই লিখেন। বইটির নাম “The art of seing” । তাতে তিনি লিখেছেন বেটস মেথডের সহজ নিয়ম পালন করে হাজার হাজার রোগী তাদের দৃষ্টি শক্তি উন্নত করতে সক্ষম হয়েছেন। তবে অবশ্যই এই পদ্ধতির সবটুকু নির্ভর করে আপনি কতটা মনোযোগ  ও একাগ্রতা নিয়ে অনুশীলন করেছেন তার উপর।

তথ্যসুত্র : হেলথ জার্নাল,২০১৮