স্মৃতিশক্তি বাড়ান

বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত গুরত্বপূর্ণ হেলথ টিপস

অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাপনের জন্য অনেকের অল্প বয়সেই স্মৃতিশক্তি ক্ষীণ হয়ে আসে। এক্ষেত্রে সচেতনতা জরুরী। নিয়মিত শরীর চর্চা করলে মস্তিস্কে অক্সিজেনের সঞ্চালন বাড়ে ফলে স্মৃতিশক্তি দৃঢ় হয়। এদিকে রাতে টানা ৬-৮ ঘন্টা ঘুম না হলে মস্তিস্ক জটিল সমস্যার সমাধান বা চিন্তা করতে পারে না। মস্তিস্ক সজাগ রাখতে সময় পেলেই বন্ধুবান্ধব বাপ্রিয়জনদের সঙ্গে আনন্দময় সময় কাটিয়ে আসুন, সামাজিক কর্মকান্ডে বা মানব সেবায় যোগ দিন এবং প্রাণ খুলে হাসুন। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা বেশি সামাজিক তাদের মনে রাখার ক্ষমতাও প্রবল। কেননা স্নেহ-মমতা, বন্ধুত্ব-ভালোবাসা এক ধরনের মানসিক ব্যায়াম। শারীরিক ও মানসিক চাপও স্মৃতিভ্রষ্টতার  জন্য দায়ী। এজন্য মেডিটেশনের কোনো বিকল্প নেই। স্মৃতিশক্তি বাড়াতে খাবার তালিকায়ও পরিবর্তন আনতে পারেন। শিম, কুমড়ার বিচি, সয়াবিন, আখরোট , ব্রোকলি, মিষ্টিকুমড়া, পালংশাক , সামুদ্রিক মাছ ইত্যাদিতে রয়েছে স্যাচুরেটেড ফ্যাট, রঙ্গিন ফলমূল-শাক সবজি ও সবুজ চায়ে রয়েছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। েএছাড়া ভাত, ডাল, রুটি যব ইত্যাদিতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট। এসব পুষ্টি উপাদান মস্তিস্কের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে স্মৃতি তীক্ষ্ন করে। শিশুদের ভিডিও গেম না দিয়ে বুদ্ধি বৃত্তিক খেলনা দিন এবং অনুষ্ঠান দেখান। তাদের রঙিন ছবি সম্বলিত বই পড়তে দিন। নিজের কাজে নতুন নতুন ঝুঁকি নিন। এ নতুনত্ব আপনার  একঘেয়েমি দুর করে কর্মচঞ্চল করে তুলবে।