ফল কেন সুস্বাদু নয় :

খাদ্যে ভেজাল ও এর ক্ষতিকারক প্রভাব

ইফতারে ভেজাল ফল আর দুধখেলে দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগতে হয়। ফল , দুধ, মাছে মেশানো হচ্ছে ক্ষতিকর ফরমালিন । বিশেষ করে আম মালটা খেজুর, আপেল , আঙ্গুর ও কমলায় এর ব্যবহার  বেশি হচ্ছে। এ ছাড়া তরল দুধে এই ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য টি মেশানো হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টরা অভিযোগ করেন। পুষ্টিবিদদের অভিযোগ, কার্বাইড ও ফরমালিন মেশানোর কারণে এখন কোনো ফলেই আগের মতো স্বাদ পাওয়া যায় না। ফলে ফরমালিন-কার্বাইড মেশানোর আতঙ্কে যারা প্যাকেট জুস কেনার কথা ভাবেন তারা আরও বেশি প্রতারণার শিকার হন। বাজারে বিক্রি হওয়া বিভিন্ন ফলের জুসে ফলের রসের ন্যূনতম উপাদান না থাকলেও নির্দিষ্ট ফলের রং , গন্ধ চিনি ও পানি মিশিয়ে জুস হিসেবে তা প্যাকেট বা বোতলজাত করা হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে চিনির বদলে ব্যবহার করা হচ্ছে স্নাইকেমেট নামের রাসায়নিক তরল পদার্থ। এ ছাড়া ইফতারে শরবতের ওপর নির্ভর করাও কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। চিনি বা কৃত্রিম মিষ্টি , রং আর মাছে ব্যবহৃত বরফ দিয়ে শরবত বানিয়ে নির্বিচারে বিক্রি চলছে।

রমজানে ভেজাল ঠেকাতে মাঠে আইনশৃঙখলা বাহিনী: খাদ্যপণ্যে ভেজাল ঠেকাতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করেছে আেইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গতকাল পুরান ঢাকার চকবাজার, বেগমবাজার ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় ভেজালবিরোধী অভিযান চালায় র‌্যাব এবং ঢাকা মমহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে যাত্রাবাড়ী এলাকায় র‌্যাবের অভিযান চলে। আর পুরান ঢাকার চকবাজারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মশিউর রহমানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে ডিএমপি। ডিএমপির নির্বহী ম্যিাজিস্ট্রেট মশিউর রহমান জানান, দুপুরে চকবাজারের অভিযানে মোট পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তিনটি ভোজ্যতেলের কারখানাকে দুই লাখ ও দুটি ড্রিংকিং ওয়াটার কারখানাকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া দুটি পানির কারখানা এবং দুটি তেলের কারখানা সিলগালা করা হয়েছে। এর আগে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে যাত্রাবাড়ীর ফলের আড়তে র‌্যাব-১০ ও বিএসটি আই যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করে। বাজারে আমদানি করা ফলগুলো স্বাস্থ্য সম্মত কিনা তা পরীক্ষা করে দেখা হয়। ইথোফেন দিয়ে অপরিপক্ব ফল পাকানোর অভিযোগে ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে জেল এবং এক হাজার মণ আম ও ৪০ মণ নষ্ট খেজুর জব্দ করে ধ্বংস করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সারওয়ার আলম জানান, রমজান উপলক্ষে ভেজাল বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে যাত্রাবাড়ীতে ফলের আড়তে আসা আমের পরিপক্বতা ও তাতে কার্বাইড ব্যবহার করা হয়েছে কিনা তা পরীক্ষ করে দেখা হয়। পরে আমে রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া যায়। জানা যায়, গত ১৬মে, ২০১৮ রাতে পুরান ঢাকার চকবাজার বেগম বাজারের মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন কোমল পানীয় বাজারজাত করার অভিযোগে খালেদ মাহমুদ ও আবু সাঈদ রাজ নামে দুই ব্যবসায়ীকে দুই বছর করে কারাদন্ড দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সরওয়ার আলমের নেতৃত্বে মেসার্স দিদার আ্যান্ড ব্রাদার্স নামের গোডাউনে অভিযান চালায় র‌্যাব। সেখানে মেয়াদোত্তীর্ণের পর টেম্পারিং করা প্রায় ২০ হাজার ক্যান জব্দ করা হয়। যেগুলোর দেড় থেকে দুই বছর আগে মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। পণ্যের গায়ে নতুন তারিখ বসিয়ে বিভিন্ন সুপারশপে সরবরাহ করত প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া একই অভিযানে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি বিভিন্ন মাদক ও নকল সিগারেট জব্দ করা হয়। যা আমদানি বা বিক্রির জন্য কোন লাইসেন্স ছিল না প্রতিষ্ঠানটির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *