মশলায় রং , ইট ও কাঠের গুঁড়া:

মশলায় রং , ইট ও কাঠের গুঁড়া:

খাদ্যে ভেজাল ও এর ক্ষতিকারক প্রভাব
মশলায় রং , ইট ও কাঠের গুঁড়া:

অধিক মুনাফার আশায় একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী মশলায় কাপড়ে ব্যবহৃত বিষাক্ত রং, দুর্গন্ধযুক্ত পটকা মরিচের গুঁড়া (নিম্নমানের মরিচ) ধানের তুষ, ইট ও কাঠের গুঁড়া, মোটরডাল ও সুজি ইত্যাদি মেশাচ্ছেন। বাংলাদেশ ষ্টান্ডর্স অ্যান্ড টেস্টিং ইনষ্টিটিউট (বিএসটিআই) ও কনজিউমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)-এর অনুসন্ধানে এ তথ্য বেরিয়ে আসে। ভেজাল মশলা কিনে ক্রেতারা শুধু প্রতারিতই হচ্ছেন না, এতে তৈরি হচ্ছে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি। কারণ ভেজাল মশলায় মেশানো ক্ষতিকর খাদ্যদ্রব্য ক্যান্সার  , কিডনি ও লিভারের রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী। অনুসন্ধানে জানা যায়, ভেজাল মশলা উৎপাদনকারী গুঁড়া মরিচের সঙ্গে একশ্রেণীর ব্যবসায়ী মেশাচ্ছেন ইটের গুঁড়া। হলুদে দেয়া হচ্ছে মটর ডাল, ধনিয়ায় স’মিলের কাঠের গুড়া ও পোস্তদানায় ব্যবহৃত হচ্ছে সুজি। মশলার রং আকর্ষনীয় করতে বিশেষ ধরনের কেমিক্যাল রং মেশানো হচ্ছে। এর কারণে গুঁড়া মরিচের ঝাল বাড়ে এবং হলুদের রং আরও গাঢ় হয়। মশলার ওজন বৃদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে ধানের ভুসি। অসাধু চক্র প্রথমে গোপন কারখানায় ভেজাল মশলা উৎপাদন করে। পরে তা প্যাকেটজাত করে খোলাবাজারে সরবরাহ করে। তারা কিছু প্যাকেট ছাড়া, কিছু সাধারণ প্যাকেটে এবং কিছু নামিদামি কোম্পানীর লেভেল লাগিয়ে মশলা গুলো বিক্রি করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *