একটানা বসে কাজ করা ঠিক নয়

একটানা বসে কাজ করা ঠিক নয়

বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত গুরত্বপূর্ণ হেলথ টিপস-২
একটানা বসে কাজ করা ঠিক নয়

আপনি কি জানেন, টানা দীর্ঘ সময় বসে থাকলে আক্রান্ত হতে পারেন, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, এমনকি ক্যানসারেও ! অবাক হচ্ছেন? সম্প্রতি এক গবেষণায় উঠে এসেছে এমনই তথ্য। গবেষকরা বলেছেন , যারা বিরতিহীন দিনে আট ঘন্টা বা এর  বেশি কিংবা একটু কম সময় একইভাবে বসে কাজ করেন বা টিভি দেখেন তাদের ৯০ শতাংশের আছে টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি। গবেষণা থেকে আরও জানা যায়, যারা দীর্ঘ সময় বসে থাকেন- তাদের ৫০ শতাংশের বেশি হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সহ আছে ৫৪ শতাংশের ফুসফুস ক্যান্সার, ৬৬ শতাংশের জরায়ু ক্যান্সার ও ৩০ শতাংশের কোলন ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা। মায়ো ক্লিনিক, অ্যারিজোনো স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ড. জেমস লেভিন জানান, দীর্ঘ সময় বসে থাকার কারণে ব্যক্তির মধ্যে বিপাকীয় উপসর্গসহ প্রায় একগুচ্ছ শারীরিক সমস্যারউন্মোষ ঘটে। উচ্চ রক্তচাপ থেকে শুরু করে রক্ত শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়া, কোমরসহ অন্য পেশিতে চর্বি জমা হওয়া ইত্যাদি সমস্যা ও দেখা দেয়। একটানা বসে কাজ করার ফলে শরীরের ক্ষতিগুলো হয়, তা হলো :

মস্তিস্ক : দীর্ঘ সময় বসে থাকার ফলে মস্তিস্কে রক্ত সরবরাহকারীনালি সুষ্ঠভাবে কাজ করতে পারেনা। ফলে রক্তপ্রবাহে বাধার সৃষ্টি হয়। দেখা দিতে পারে স্ট্রোকের মতো রোগ।

ফুসফুস : টানা ৮-১২ ঘন্টা বসে থাকলে দিনে দুবার রক্ত জমাট বা পালমেনারি এনাবোলিজম হওয়ার ঝুঁকি থাকে। এ জমাট রক্ত যদি মস্তিস্কে প্রবাহিত হয়, তাহলে স্ট্রোক করতে পারে।

বাহু : হাঁটা-চলা, বা শারীরিক কার্যকলাপ কম হলে উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

পাকস্থলী : একইভাবে বসে থাকলে কোলন ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া বেশিক্ষণ একই ভাবে ববসে থাকলে পেশির রক্তনালিতে থাকা এনজাইম চর্বি পোড়ানোর ক্ষমতা হারিয়ে  ফেলে। তাই স্বাভাবিক বিপাকক্রিয়া ব্যাহত হয়।

ঘাড় : সারা দিন পা অপরিবর্তিত থাকার ফলে পায়ে পানি জমে । হঠাৎ উঠে দাড়ানোর সব জলীয় পদার্থ ঘাড়ে এসে জমা হয়। এ থেকে ঘাড়ে ব্যথাও নিদ্রাহীনতা হতে পারে।

হৃৎপিন্ড : অধিকাংশ  সময় যারা বসে থাকেন তাদের অন্যদের তুলনায় দিগুন বেশি হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।

পিঠ : টানা বসে থাকায় মেরুদন্ডে চাপ পড়ে মেরুদন্ড সংকুচিত হয়ে যেতে পারে।

পা : বসে থাকার ফলে পানি পায়ে এসে জমা হয়। অনেক সময় পা ফুলে যায়। কিন্তু কিছুক্ষন পর পর হাটাহাটি করলে তা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই সাবধান থাকুন। তবে সমস্যা যাই হোক, চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়াই ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *