দই-ফলের উপকারিত

দই-ফলের উপকারিত

বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত গুরত্বপূর্ণ হেলথ টিপস-৩
দই-ফলের উপকারিত

ওজন নিয়ে চিন্তা প্রায় সবার সমান। কারন ওজন যত সহজে বাড়ে, তত সহজে কমে না। খাবার দাবারে কঠোরতা, দীর্ঘ সময় ব্যায়াম করে ঘাম ঝরানো কাজটা কঠিন। তাই বাড়ন্ত ওজন কমিয়ে ফেলার ইচ্ছা থাকলেও কমানো হয়ে ওঠেনা। তবে ওজন কমানোর পদ্ধতি যে নেই, তা নয়। শুধু রাতের খাবারের মেনুটা একটু বদলাতে হবে। রাতে অন্য খাবার বাদ দিয়ে শুধু দই ফল খেলেই কেচ্ছ খতম। টক দইয়ের সাথে বিভিন্নফলের মিশ্রণে তৈরী খাবারটা যেমন পুষ্টিকর তেমনি সুস্বাদু। নিয়মিত দই ফল খাওয়ার অভ্যাস করলে শরীর প্রয়োজনীয় পুষ্টির পাশাপাশি পাবে প্র্রচুর ভিটামিন ও ফইবার।টক দই ও উপকারী। এতে আছে প্রচুর ফসফরাস, পটাসিয়াম, রিবোফ্লাবিন, ভিটামিন বি-৫, ভিটামিন বি-১২ সহ আরো গুরত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান, যা শরীরের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

দই-ফলের উপকারিত

দই-ফল : প্রতিদিন একই ফল দিয়ে দই-ফল খেতে হবে এমন নয়। ঋতু অনুযায়ী যে ফল পাওয়া যাবে, সেটি দিয়ে তৈরী করা যায় দই-ফল। এজন্য প্রয়োজন ৩-৪ ধরণের ফল। তবে আম, কলঅ, পেঁপে, আপেল, নাশপতি, কমলা, স্ট্রবেরী ইত্যাদি দিয়ে প্রস্তুত করলে খেতে সুস্বাদু হয়। ২৫০ গ্রাম টক দইয়ের সাথে ৪-৫ ধরনের যে কোন মৌসুমী ফল (ছোট ছোট করে কাটা) কাজু বা পেস্ত বাদাম কোয়াটার কাট নিন।টক দই হালকা করেফাটিয়ে নিন। কিছু কাটা ফলের উপর ফাটিয়ে নেয়া দই ঢেলে দিন। এবার দইয়ের উপর কেটে রাখা বাকি ফলগুলো দিয়ে বাদাম ছিটিয়ে দিন। এবার দইয়ের দইয়ের উপর কেটে রাখা বাকি ফলগুলো দিয়ে বাদাম ছিটিয়ে দিন। ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে পরিবেশন করু মজাদার এই দই- ফল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *