ধনেপাতার কত গুণ

ধনেপাতার কত গুণ

ধনেপাতার কত গুণ
ধনেপাতার কত গুণ

ভুমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে ঔষধি পাতা হিসেবে অত্যন্ত জনপ্রিয় সিলানত্রো। তবে বাংলাদেশে এটি পরিচিত ধনেপাতা নামে, রাঁধুনিদের কাছে তো রীতিমতো গুরত্বপূর্ণ একটি উপাদান। স্যুপ, তরকারি, সবজি, সালাদ কিংবা ভর্তা- যাতেই মেশান না কেন, পাল্টে যায় তার স্বাদ। তখন একটু  বেশি বেশি খেতে চান সবাই। এতে রয়েছে পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যগনেসিয়াম, আয়রন ও ম্যাংগানিজ। এছাড়া ফলিক এসিড, ভিটামিন এ ও সি এবং বেটা ক্যরোটিনও রয়েছে প্রচুর। ভিটামিন সি’র অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের জ্বালাপোড়া কমাতে দারুনভাবে সহায়তা করে। খারাপ কোলেষ্টেরল কমিয়ে বাড়ায় ভালো কোলেষ্টেরল মাত্রা। বমি বমি ভাব দূর তো করেই, বৃদ্ধি করে হজম শক্তি। এছাড়া বাড়ায় লিভারের কার্যকারিতাও। ধনেপাতা লাগানোর জন্য ব্যাপক কোন প্রস্ততির প্রয়োজন নেই। আশপাশের কোন ফাঁকা জায়গা , এমনকি ছাদে লাগিয়ে হামেশা ব্যবহার করতে পারেন আপনার রান্নায়।

ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য বিশেষ উপকারী ধনে পাতা

ডাল, তরকারি, মুড়ি মাখা থেকে শুরু করে ফুচকাসহ নানা খাবারে ব্যবহার হয় ধনে পাতা। শুধু স্বাদে নয়, ধনে পাতার স্বাস্থ্য গুনও অনেক বেশি। চিকিৎসকেরা বলছেন, প্রতিদিন ধনে পাতা খেলে অনেক রোগ দূর হবে খুব দ্রুত।

১। প্রতিদিন ধনে পাতার শরবত খেলে কিডনি ভালো থাকে। কিডনির মধ্যে জমে থাকা ক্ষতিকর লবণ এবং বিষাক্ত পদার্থ প্রস্রাবের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়।

২। ধনে পাতা খেলে শরীরে খারাপ কোলেষ্টেরলের মাত্রা কমে যায়, ভালো কোলেষ্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। হজমে উপকারী , যকৃতকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে এবং পেট পরিষ্কার হয়ে যায় ধনে পাতা খেলে।

৩। ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য ধনে পাতা বিশেষ উপকারী একটি খাবার। এটি ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং রক্তের সুগারের মাত্রা কমায়। ধনে পাতায় থাকা অ্যান্টি-সেপটিক মুখে আলসার নিরাময়েও উপকারী, চোখের জন্যও ভালো।

৪। কারও মাথাব্যথা হলে ধনে পাতা ও গাছের রস কপালে রাগান। মাথব্যথা কমে যাবে। ধনে পাতা চিবিয়ে দাঁত মাজলে দাঁতের মাড়ি মজবুত হয় এবং দাঁতের গোড়া হতে রক্ত পড়া বন্ধ হয়।

৫। ধনে পাতায় রয়েছে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা বাতের ব্যথাসহ হাড় এবং জয়েন্টের ব্যথা উপশমে কাজ করে। স্মৃতিশক্তি প্রখর এবং মস্তিস্কের নার্ভ সচল রাখতে সাহায্য করে ধনে পাতা।

৬। ধনে পাতার মধ্যে থাকা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টিইনফেকসাস, ডিটক্সিফাইং, ভিটামিস সি এবং আয়রন, যা গুটি বসন্ত প্রতিকার এবং প্রতিরোধ করে।

৭। মুখের দুর্গন্ধ ও অরুচি ভাব দূর করে ধনে পাতা। এছাড়া শুকনো ধনেও মুখরোচক ও রুচিবর্ধক । মাঝে মাঝে ধনেপাতা চিবিয়ে খান মুখের দুর্গন্ধ থাকবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *